লগ-ইন ¦ নিবন্ধিত হোন
 ইউনিজয়   ফনেটিক   English 
নদী দখলকারীরা যত শক্তিশালী হোক, তাদের ১৩ স্থাপনা উচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। সরকার কি আদৌ তা পারবে?
হ্যাঁ না মন্তব্য নেই
------------------------
নিউজটি পড়া হয়েছে ১০৭ বার
আশা জাগিয়েও পারল না বাংলাদেশ
বাংলারিপোর্টার.কম
বৃহস্পতিবার, ০১ জুন ২০১৭   

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশ গড়েছিল সর্বোচ্চ দলীয় স্কোরের নতুন রেকর্ড। ছুঁড়ে দিয়েছিল ৩০৫ রানের চ্যালেঞ্জ। তৃতীয় ওভারে ওপেনার জ্যাসন রয়ের উইকেটও তুলে নিয়েছিলেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। কিন্তু এত কিছুর পরেও হারের হতাশা নিয়েই মাঠ ছাড়তে হলো টাইগারদের। ৮ উইকেটের জয় দিয়ে চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে শুভসূচনা করল স্বাগতিক ইংল্যান্ড।


শুরুতে ইংল্যান্ডকে ধাক্কা দিয়েছিলেন মাশরাফি-মোস্তাফিজ। সেই ধাক্কা সামলে দুর্বার গতিতে স্বাগতিকদের এগিয়ে আলেক্স হেলস আর জো রুট জুটি। তাদের দু’জনের ‍জুটিতে ১৫৯ রান ওঠার পর অনিয়মিত বোলার সাব্বির রহমান এসে ভাঙন ধরান; কিন্তু তাতে লাভ হলো না কিছুই। জো রুট আর ইয়ন মরগ্যানের ব্যাটে ৮ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে জয় নিয়েই মাঠ ত্যাগ করলো স্বাগতিক ইংল্যান্ড।


দুর্দান্ত সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন জো রুট। ১২৯ বল খেলে তিনি অপরাজিত ছিলেন ১৩৩ রানে। হাফ সেঞ্চুরি করার পর ৬১ বলে ৭৫ রানে অপরাজিত থাকেন ইয়ন মরগ্যানও। তার আগে ৯৫ রান করে আউট হন আলেক্স হেলস। মূলতঃ দুটি জুটিই ইংল্যান্ডকে জয় উপহার দেয়। রুট-হেলসের ১৫৯ এবং রুট-মরগ্যানের অপরাজিত ১৪৩ রানের জুটি।


বাংলাদেশের বোলাররা ছিলেন পুরোপুরি নখদন্তহীন। মোস্তাফিজ দু’একটি বল ভালো করলেও সেগুলো উইকেট পাওয়ার মত হয়নি। ইংলিশ ব্যাটসম্যানদের মধ্যে কাঁপন ধরিয়ে দেয়ার মত সেই রুবেলকে আজ দেখা যায়নি। প্রচুর ফুলটস আর আলগা বল দিয়েছেন। যেখানে ইংল্যান্ড খেলিয়েছেন পাঁচ পেসার, সেখানে আমরা খেলালাম তিন পেসারকে।


একইসঙ্গে একজন স্পেশালিস্ট বোলার ছিল কম। মাত্র চারজন বোলার নিয়ে মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ। এ কারণে অকেশনাল মোসাদ্দেক হোসেন, সৌম্য সরকার কিংবা সাব্বির রহমানকে ব্যবহার করতে হয়েছে মাশরাফিকে। এর মধ্যে আবার মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে অব্যবহৃত রেখে দিতেও দেখা গেলো। কখনও কখনও অভিজ্ঞতা কাজ দেয়। মাহমুদউল্লাহর অভ্জ্ঞতাকে কাজে লাগানো যেতো।


বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি পিছিয়েছে সাকিব আল হাসানের কারণে। ব্যাট হাতে শেষ দিকে মারমুখি হওয়া প্রয়োজন ছিল। কিন্তু তা তিনি হতে পারেননি। বল হাতে তার ওপর ছিল অনেক বেশি ভরসা; কিন্তু ৮ ওভার বল করে তিনি ইংলিশ ব্যাটসম্যানদের কাছ থেকে সমীহ আদায় করা দুরে থাক, কোনো প্রভাবই বিস্তার করতে পারেননি। উল্টো ৭.৭৫ ইকনোমি রেটে রান দিয়েছে ৬২টি। এই একটি ক্ষেত্রেই পিছিয়ে গেছে বাংলাদেশ। হার মেনেছে ১৬ বল বাকি থাকতেই।


ইনিংসের তৃতীয় ওভারেই ইংল্যান্ডকে প্রথম ধাক্কাটা দিয়েছিলেন মাশরাফি। ফিরিয়েছিলেন জেসন রয়কে। কিন্তু দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠেন জো রুট আর আলেক্স হেলস। গড়েন ১৫৯ রানের জুটি। নিয়মিত বোলাররা যখন কিছুই করতে পারছিলেন না।


বাধ্য হয়েই অনিয়মিত বোলার সাব্বিরের হাতে বল তুলে দিলেন মাশরাফি। আর তাতেই একটা জুটি ভাঙতে পারে ইংল্যান্ডের। ৮৬ বলে ব্যক্তিগত ৯৫ রান করে সানজামুলের (পরিবর্তিত ফিল্ডার) হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন হেলস।


এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে তামিম ইকবালের ১২৮, মুশফিকুর রহিমের ৭৯ রানের দারুণ দুটি ইনিংসে ভর করে স্কোরবোর্ডে ৩০৫ রানের বড় সংগ্রহ জমা করেছে বাংলাদেশ। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এটাই বাংলাদেশের সর্বোচ্চ দলীয় স্কোর। বিদেশের মাটিতে সর্বোচ্চ জুটির নতুন রেকর্ডও গড়েছেন তামিম ও মুশফিক। তৃতীয় উইকেটে তাঁরা যোগ করেছিলেন ১৬৬ রান। এর আগে বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রানের জুটিটিও ছিল ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। ২০১৫ বিশ্বকাপে মুশফিক আর মাহমুদউল্লাহ পঞ্চম উইকেটে করেছিলেন ১৪১ রান।

খেলাধুলা এর অন্যান্য খবর
Editor: Syed Rahman, Executive Editor: Jashim Uddin, Publisher: Ashraf Hassan
Mailing address: 2768 Danforth Avenue Toronto ON   M4C 1L7, Canada
Telephone: 647 467 5652  Email: editor@banglareporter.com, syedrahman1971@gmail.com