লগ-ইন ¦ নিবন্ধিত হোন
 ইউনিজয়   ফনেটিক   English 
নদী দখলকারীরা যত শক্তিশালী হোক, তাদের ১৩ স্থাপনা উচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। সরকার কি আদৌ তা পারবে?
হ্যাঁ না মন্তব্য নেই
------------------------
নিউজটি পড়া হয়েছে ৬৮ বার
ডিইউপি'র সমর্থনে টেরিজা মে-ই হচ্ছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী
বাংলারিপোর্টার.কম
শুক্রবার, ০৯ জুন ২০১৭  

যুক্তরাজ্যের কনজারভেটিভ নেত্রী থেরেসা মে ঘোষণা দিয়েছেন, নির্বাচনে দল সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারালেও ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তিনিই দায়িত্ব পালন করবেন। ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়নিস্ট পার্টি (ডিইউপি)-কে নিয়ে তার দল সরকার গঠন করবে। নতুন সরকার গঠনের ১০ দিনের মধ্যেই ব্রেক্সিট নিয়ে আলোচনা শুরু হবে।


পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনে ৩২৬টি আসন জয়ে ব্যর্থ হওয়ায় কনজারভেটিভ পার্টি নর্দান আয়ারল্যান্ডের ডিইউপি পার্টির সঙ্গে মাইনোরিটি সরকার গঠন করতে যাচ্ছে। নির্বাচনে দলটি ৩১৮টি আসন পেয়েছে এবং ডিউপি ১০টি আসনে জয়লাভ করেছে। ডিউপির ১০ জন এমপি-র সমর্থনে হাউস অব কমন্সে যে কোনও বিল পাস এবং সরকার গঠন করতে পারবেন থেরেসা মে।


নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি আসন পাওয়া দলের নেতা হিসেবে থেরেসা মে সরকার গঠনের অনুমতি চাইতে শুক্রবার বাকিংহাম প্যালেসে রানীর সঙ্গে দেখা করেন। রানীর অনুমতি পাওয়ার পর ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন ডাউনিং স্ট্রিটে ভাষণ দেন থেরেসা মে। ভাষণে তিনি বলেন, আমি এখন একটি সরকার গঠন করব। যে সরকার নিশ্চয়তা দেবে এবং সংকটময় এ সময়ে ব্রিটেনকে এগিয়ে নেবে।


নির্বাচনে কনজারভেটিভ পার্টি সর্বোচ্চ ভোট এবং এককভাবে সবচেয়ে বৃহত্তম রাজনৈতিক দলে পরিণত হওয়ার কথা ভাষণে উল্লেখ করেন থেরেসা মে।


থেরেসা মে বলেন, ‘গুরুত্বপূর্ণ ব্রেক্সিট আলোচনায় এই সরকার দেশকে প্রতিনিধিত্ব করবে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে যুক্তরাজ্যের বেরিয়ে আসার জন্য ব্রিটিশ জনগণের ইচ্ছা পূরণ করা হবে।’


নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনে কনজারভেটিভরা ব্যর্থ হওয়ার ফলে থেরেসা মে’র নেতৃত্ব ও প্রধানমন্ত্রীর পদে থাকা নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছিল। আগাম নির্বাচনের ঘোষণা দেওয়ার সময় থেরেসা মে জানিয়েছিলেন, ব্রেক্সিট আলোচনায় যুক্তরাজ্য সরকারকে আরও শক্তিশালী করতেই এই নির্বাচন।


নির্বাচনি প্রচারণার শুরু থেকে জরিপে যে পূর্বাভাস দেওয়া হচ্ছিল, ভোটের ফলে সে তুলনায় অনেক ভালো করেছে জেরেমি করবিনের নেতৃত্বাধীন লেবার পার্টি। বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ আসন কনজারভেটিভদের কাছ থেকে কেড়ে নিয়েছেন লেবার এমপিরা। ২৬১টি আসনে জয় পেয়েছে লেবার পার্টি। ২০১৫ সালের তুলনায় এবার ২৯টি আসন বেশি পেয়েছে দলটি। নিজ আসনে জয়লাভের পর দেওয়া ভাষণে জেরেমি করবিন থেরেসা মে-কে পদত্যাগের আহ্বান জানান। তিনি বলেন, তার দল দেশকে সেবা দিতে প্রস্তুত।


স্কটিশ ন্যাশনাল পার্টি (এসএনপি), লিবারেল ডেমোক্র্যাটস, গ্রিনপার্টি, ওয়েলশ প্লেই কাইমরু দলের সঙ্গে কথিত প্রগতিশীল জোট গঠনে প্রস্তুত থাকলেও সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য প্রয়োজনীয় আসন পূর্ণ করতে পারছে না লেবার পার্টি।


লিবারেল ডেমোক্র্যাট পার্টির নেতা টিম ফ্যারন বলেছেন, যদি ‘এক বিন্দু আত্মসম্মানবোধ’ থেকে থাকে তাহলে থেরেসা মে-র ‘লজ্জিত ও পদত্যাগ করা উচিত।’


কনজারভেটিভদের সঙ্গে কাজ করার কথা ঘোষণা করেছেন ডিইউপি নেতা আরলিন ফোস্টার। শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, সকালে থেরেসা মে’র সঙ্গে তার কথা হয়েছে। দেশে স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনতে কনজারভেটিভ ও ডিইউপি আগ্রহী।

বিশ্বসংবাদ এর অন্যান্য খবর
Editor: Syed Rahman, Executive Editor: Jashim Uddin, Publisher: Ashraf Hassan
Mailing address: 2768 Danforth Avenue Toronto ON   M4C 1L7, Canada
Telephone: 647 467 5652  Email: editor@banglareporter.com, syedrahman1971@gmail.com