লগ-ইন ¦ নিবন্ধিত হোন
 ইউনিজয়   ফনেটিক   English 
নদী দখলকারীরা যত শক্তিশালী হোক, তাদের ১৩ স্থাপনা উচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। সরকার কি আদৌ তা পারবে?
হ্যাঁ না মন্তব্য নেই
------------------------
নিউজটি পড়া হয়েছে ৫৬৯ বার
রাজশাহীর সেই এএসপির বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু
২১ মো ২০১৪

কোটি টাকার হেরোইনসহ মাদক কারবারিকে আটক করে সহিংসতার মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো, মাসোয়ারা আদায়, আটক মাদক বিক্রি ও মাদক মামলায় পলাতক দেখানোর বিনিময়ে আসামিদের কাছ অর্থ আদায়সহ নানা বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ার অভিযোগে রাজশাহী সদর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) আব্দুল হান্নানের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু হয়েছে।


এএসপি হান্নান ছাড়াও তাঁকে সহায়তার অভিযোগে দুই থানার ওসি, একজন উপপরিদর্শকসহ আরো পাঁচ পুলিশ সদস্য তদন্তের আওতায় রয়েছেন বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। তাঁরা হলেন গোদাগাড়ী থানার ওসি আবু মোকাদ্দেম আলী, পবার ওসি আকবর হোসেন, গোদাগাড়ী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মেহেদী হাসান। বাকিজন গোড়াগাড়ী থানার কনস্টেবল। তবে তাঁর নাম জানা যায়নি।


তদন্তসংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পাওয়ার পর পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক (প্রশাসন) এ কে এম শহীদুল হক সম্প্রতি হান্নানসহ রাজশাহীর ছয় পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে তদন্তের নির্দেশ দেন। সেই নির্দেশ অনুযায়ী, পুলিশের সিকিউরিটি সেলের একটি তদন্তদল গত মঙ্গলবার ঢাকা থেকে রাজশাহী এসেছেন। সিকিউরিটি সেলের এএসপি আব্দুস সালাম তদন্তদলের নেতৃত্বে দিচ্ছেন। গতকাল বুধবার থেকে তদন্ত শুরু করেছেন তাঁরা।


জানতে চাইলে পুলিশ কর্মকর্তা শহীদুল হক কালের কণ্ঠকে বলেন, 'অভিযোগ পাওয়ার পর তদন্তের জন্য একটি দল রাজশাহী পাঠানো হয়েছে।'


সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, তদন্তের শুরুর দিনই এএসপি আব্দুল হান্নানকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। পাশাপাশি তিনি গোদাগাড়ীর যে তিন দালালের মাধ্যমে অর্থ আদায়ের ফাঁদ পাততেন কমিটি তাদেরও বক্তব্য নিয়েছে। ওই এলাকার যেসব প্রভাবশালী মাদক কারবারির সঙ্গে এএসপি হান্নানের সখ্য রয়েছে বলে অভিযোগ আছে তাদের জিজ্ঞাসাবাদের আওতায় আনা হবে বলেও সূত্রটি নিশ্চিত করেছে।


তদন্তদলের প্রধান সিকিউরিটি সেলের এএসপি আব্দুস সালাম সাংবাদিকদের জানান, তদন্ত চলছে। সংশ্লিষ্ট সবাইকে পর্যায়ক্রমে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।


প্রসঙ্গত, গত মাসে চাঁদা চেয়ে না পেয়ে পবার হরিপুরের ব্যবসায়ী আয়নাল হককে একটি মাদক মামলায় আটক করে বস্তায় ভরে নির্যাতন করার অভিযোগ ওঠে এএসপি হান্নানের বিরুদ্ধে। এর আগে গত ১৩ মার্চ দিবাগত রাতে এএসপি হান্নানের নেতৃত্বে গোদাগাড়ী থানার ওসি আবু মোকাদ্দেম আলী ও এসআই মেহেদী হাসান ৩০০ গ্রাম হেরোইনসহ দুই মাদক কারবারিকে আটক করেন। পরের দিন তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয় গত বছরের ৩ মার্চ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে জামায়াত-শিবিরের সহিংসতার মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে। একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হয়েছে ৩১ মার্চ। সেদিন দুই মাদক কারবারিকে আটক করা হয়। কিন্তু পরদিন জামায়াত-শিবিরের সহিংসতার মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে তাঁদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।


সংশ্লিষ্ট সূত্রে আরো জানা গেছে, এএসপি আব্দুল হান্নান দুই বছর ধরে সদর সার্কেলে কর্মরত। নিজ সার্কেলের পাশাপাশি জেলা গোয়েন্দা পুলিশেরও দায়িত্বে ছিলেন প্রায় এক বছর। এ সময় গোদাগাড়ীর মাদক আখড়া হিসেবে পরিচিত মাদারপুর, মহিষালবাড়ী, সিঅ্যান্ডবিসহ আরো কয়েকটি এলাকায় হোরোইন আটকের নামে চোরাকারবারিদের বাড়ি বাড়ি অভিযান পরিচালনা করে আসছেন তিনি। এসব অভিযানে অভিযুক্তদের তুলে নিয়ে বিপুল পরিমাণ অর্থের বিনিময়ে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। প্রতি রাতেই অভিযানের নামে অপরাধী-নিরপরাধী নির্বিশেষে লোকজনকে ধরে নিয়ে অর্থ আদায় করার অভিযোগও ওঠে। এ কারণে তিনি সন্ধ্যার পর গোদাগাড়ীতে গিয়ে অবস্থান করতেন বলেও জানা গেছে।


অভিযোগ রয়েছে, গোদাগাড়ীর প্রভাবশালী মাদক কারবারি জহুরুল, আব্দুল্লাহ, নয়ন, সামায়নসহ শতাধিক চোরকারবারি এএসপি হান্নানের সরকারি বাসায় গিয়ে টাকা নিয়ে আসত। এ ছাড়া আটক মাদকদ্রব্য বিক্রি করে দিয়েও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। এসব কর্মকাণ্ডে গোদাগাড়ী ও পবা থানার অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যরা তাঁকে সহযোগিতা করতেন। এসব অভিযোগ পাওয়ার পর রাজশাহী জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে বিষয়গুলো পুলিশ সদর দপ্তরকে জানানো হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে সদর দপ্তর থেকে তদন্তের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।


জানতে চাইলে রাজশাহী জেলার পুলিশ সুপার আলমগীর কবির কালের কণ্ঠকে বলেন, 'যদি এ ধরনের তদন্ত হয়ও সেটা আমাদের জানার কথা নয়। কারণ অভ্যন্তরীণ এ প্রক্রিয়াটি গোপনে হয় এবং তদন্তদলের সদস্যরা নিজেদের মতো কাজ করে চলে যাবেন।'

রাজশাহী বিভাগ এর অন্যান্য খবর
Editor: Syed Rahman, Executive Editor: Jashim Uddin, Publisher: Ashraf Hassan
Mailing address: 2768 Danforth Avenue Toronto ON   M4C 1L7, Canada
Telephone: 647 467 5652  Email: editor@banglareporter.com, syedrahman1971@gmail.com