সৌদি আরবে হঠাৎ করে প্রিন্স-মন্ত্রী আটক
বাংলারিপোর্টার.কম
রবিবার, ০৫ নভেম্বর ২০১৭

সৌদি আরব দেশটির ১১ যুবরাজকে গ্রেফতার করেছে। এছাড়া বর্তমান ও সাবেক বেশ কয়েকজন মন্ত্রীকেও গ্রেফতার করা হয়েছে। সংবাদমাধ্যমের খবরে এ কথা বলা হয়।


গত ২/৩ দিনে সৌদি আরবে প্রায় ২০ জন উচ্চ পর্যায়ের ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মানবাধিকার সংস্থাগুলোর বরাত দিয়ে জানা গেছে, গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিদের মধ্যে বেশ কয়েকজন ধর্মগুরুও রয়েছেন। অভিযোগ উঠেছে গ্রেফতারকৃতদের সবাই সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মুহাম্মেদ বিন সালমানের বিরোধী ভাবাপন্ন।


এ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল জানায়, নির্দিষ্ট করে না বলা গেলেও, গ্রেফতারকৃতের সংখ্যা ২০ ছাড়িয়েছে। তাদের মধ্যে ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব ছাড়াও রয়েছেন লেখক, সাংবাদিক এবং অধিকারকর্মী। সংস্থাটির মুখপাত্র সামা হাদিদ বলেন, ‘সৌদি আরবে এত অল্প সময়ের মধ্যে এত বেশি সংখ্যক প্রখ্যাত ব্যক্তিত্বকে গ্রেফতার, এবারই প্রথম।’


এ্যামনেস্টি দাবি করে, গত ২১ জুন মোহাম্মেদ বিন সালমান ক্রাউন প্রিন্স হওয়ার পর কার্যত মুসলিম রাজতন্ত্রের দেশটি বিভিন্ন অধিকার সংক্রান্ত বিষয়গুলো থেকে বিচ্যুত হতে শুরু করেছে। মূলত ক্রাউন প্রিন্সের ক্ষমতাকে আরও পাকাপোক্ত করার জন্য গ্রেফতারের মতো ঘটনাগুলো ঘটছে।


অধিকারকর্মীদের বরাত দিয়ে জানা গেছে, গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে রয়েছেন ধর্মীয় নেতা সালমান আল-আওদাহ এবং আওয়াদ আল-কার্নি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের লাখ লাখ অনুসারী রয়েছে। ১৯৯১ সালে কুয়েতের সঙ্গে যুদ্ধে সৌদি আরবে মার্কিন সৈন্য উপস্থিতির তীব্র বিরোধীতা করেছিলেন তারা। এছাড়া এই দুজনের সঙ্গে মুসলিম ব্রাদারহুডের সম্পর্ক রয়েছে বলে আভিযোগ আছে। মুসলিম ব্রাদারহুড সৌদি আরবে নিষিদ্ধ সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে কালো তালিকাভুক্ত।


গ্রেফতারের আগে আওদাহ সৌদি নেতৃত্বাধীন গোষ্ঠীর তিন মাসের বয়কটের পর প্রিন্স মোহাম্মদের সঙ্গে ও কাতারের আমীর শেখ তামিম বিন হামাদ আল-থানি’র সাক্ষাতকে স্বাগত জানিয়েছিলেন।


সাম্প্রতিক গ্রেফতারগুলোর বিষয়ে সৌদি কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে এখনো কিছু জানানো হয়নি। ডেইলি মেইল